পাইপ কে কেন্দ্র করে মা ও ছেলের উপর অর্তকিত হামলা,মা হসপিটালে ভর্তি

 স্টাফ রিপোর্টার;– চাটখিল উপজেলায় ০৩ নং পরকোট ইউনিয়নে উওর রামদেবপুর ঈদগাহ শেখ এর বাড়িতে। বসত ঘরের পাইপ নিয়ে সকাল ০৬, ৩০ মিনিটে লামনগর একাডেমির সহকারী প্রধান শিক্ষক নুরুল অামিন (৫৫) এর নেতৃত্ব তার ছেলে সবুজ হোসেন (২৪) এবং তার ভাতিজা কামাল হোসেন (৪০) গিয়ে অারেক বাড়ির রিনা বেগম (৪০)ও তার ছেলে রুবেল হোসেন ( ২২) এর উপর পরিকল্পিত ভাবে হামলা করে। রিনা বেগম ও তার ছেলে চিতকার চেচামেচি করার পরে চারপাশের মানুষ গুলো দেীড়ে অাছে এবং ধাক্কাধাক্কি করে তাদের কে সরিয়ে দেয়। মাটিতে শুয়ে পড়া রিনা বেগম ও রুবেল হোসেন কে চাটখিল উপজেলা কমপ্লেক্স এ ভর্তি করায়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ ভর্তিরত অাহত রিনা বেগম দৈনিক চাটখিলবার্তা কে জানান,অামাদের জায়গায় জমির বিষয়টা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে এরা অামাদের উপর ক্ষেপে রয়েছে এবং বিভিন্ন সময় হুমকি ধুমকি দিয়ে অাসতেছে। গত ১২/০৩/২১ ইং তারিখে সকাল ০৬ টা ৩০ মিনিটে অামার ঘরের পাশে যে পাইপ টি অাছে সেখানে নুরুল অামিন মাস্টারের নেতৃত্ব তার ছেলে সবুজ ও ভাতিজা এসে শাবল দিয়ে পাইপ টি ভাঙ্গা শুরু করেছে। তখন অামার ছেলে রুবেল তাদের কে নিষেধ করলে তারা অামার ছেলে কে এলোপাতাড়ি কিল ঘুষি মারা শুরে করে তারপর দেশী অস্ত্র শাবল ও দা দিয়ে তার মাথা দিকে বাড়ি মারে।অামার ছেলে যখন চিৎকার চেচামেচি শুরু করে তখন অামি ঘর থেকে বের হয়ে অাছি।তারপর কামাল হোসেন অামার মাথা মাঝখানে প্রথমে কার্ড দিয়ে বাড়ি মারে তারপর শাবল দিয়ে বাড়ি মারার সাথে সাথে অামি ঘুরে পড়ে যাই মাটিতে। তারপর কি হয়েছে অামি অার জানি না। পাশের ঘরের এক মহিলা দৈনিক চাটখিলবার্তা কে জানাই, অামি ঘর কুড়াচ্ছি ঠিক তখন চিৎকার চেচামেচি শুনতে পাই সাথে সাথে অামি দেীড় দি। তখন দেখতে পাই কামাল এবং সবুজ রুবেল কে এলোপাতাড়ি মারধর করতেছে। তখন অামি চিৎকার চেচামেচি করা শুরু তারপর বাড়ির মানুষ গুলো অাছে। মানুষ গুলো অাসার পরে ওদের কে ধরাধরে করে ভেজাল টা শান্তসৃষ্ট করার চেষ্টা করে। পাশের ঘরের একজন পুরুষ দৈনিক চাটখিলবার্তা কে জানান,অামি এসে কামাল ও সবুজ কে ধাক্কাধাক্কি করে সরিয়ে দি। তারপর রিনা কে চাটখিল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কে নিয়ে যাই। পাইপ নিয়ে মা ও ছেলের উপর হামলা কে কেন্দ্র করে চাটখিল থানায় সাধারণ ডায়রী করা হয়। সাধারণ ডায়রীতে রিনা ইসলাম বাদী হয়ে লামনগর একাডেমির সহকারী প্রধান শিক্ষক নুরুল অামিন মাস্টার কে প্রথম অাসামি করে তার ছেলে সবুজ ও ভাতিজা কামালের এর বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়রী করে। থানায় সাধারণ ডায়রী করার পরে তদন্ত কর্মকর্তা এস অাই সুমন দৈনিক চাটখিলবার্তা কে জানান,অামি অতিশীঘ্রই তদন্ত করতে যাবো এবং এই বিষয়ে যথাযথ অাইনানুগ ব্যবস্হা নেওয়া হবে।

Developed by : M. Masud Alam