চলে গেলেন চাটখিলের উজ্জ্বল নক্ষত্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রী আফসিন আহমেদ

মাইনউদ্দিন বাঁধন;- চাটখিল উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ৯ নং খিলপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ভিপি পেয়ার আহমেদ এর একমাত্র কন্যা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রী আফসিন আহমেদ তৃষা সড়ক দুর্ঘটনায় ইন্তেকাল করেছে।

চাটখিল স্টুডেন্টস ফোরাম অব ঢাকার দায়িত্বে থাকা এহসানুল হক লিখন দৈনিক চাটখিলবার্তা কে জানান, আফসিন আহমেদ তৃষা তিনি চাটখিল উপজেলায় জন্য অনেক কিছু করার চেষ্টা করতেন সবসময়। গরীব দুঃখী অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সবসময় চেষ্টা করতেন,আমরা আফসিন আহমেদ তৃষার বিদ্রেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

বাংলাদেশের প্রথম শ্রেণীর পত্রিকা প্রথম আলোতে এ বিষয়ে একটি সংবাদ ছাপানো হয়। 

দিন সাতেক আগে দেশের একটি অন্যতম শিল্পগোষ্ঠীতে যোগ দিয়েছিলেন আফসীন আহমেদ (২৭)। আজ সোমবার বিকেলে বনানীতে ওই ভবনের নিচের রাস্তায় তাঁর মৃতদেহ পাওয়া যায়। বনানী থানা-পুলিশ এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

আফসীনের এক স্বজন জানান, নানা কারণে তিনি বিষণ্নতায় ভুগছিলেন।

বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূরে আজম মিঞা প্রথম আলোকে বলেন, বিকেল চারটার দিকে তাঁরা একজন নারীকে রাস্তায় মৃত পড়ে থাকার খবর পান। ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। তিনি ভবনের ১৪ তলায় কাজ করতেন। সেখান থেকে ভিডিও ফুটেজে তাঁকে খুব স্বাভাবিকভাবে নেমে যেতে দেখা যায়। অফিসের আরও ফুটেজ তাঁদের হাতে রয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার তাঁরা ফুটেজগুলো আবারও দেখবেন।

প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছেন, আফসীন আহমেদ আত্মহত্যা করেছেন। থানা থেকে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। বনানী থানায় সন্ধ্যার দিকে তাঁর স্বামী গেছেন বলেও জানান ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)।

এদিকে আফসীনের একজন স্বজন প্রথম আলোকে বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট (আইবিএ) থেকে স্নাতক করেছিলেন আফসীন। তুখোড় ছাত্রী ছিলেন। আফসীন লিখতেন চমৎকার। গিটার বাজিয়ে গানও গাইতেন। নানা কারণে তিনি বিষণ্নতায় ভুগছিলেন। চার বছর আগে বাবাকে হারিয়েছেন। মা ক্যানসারে ভুগছেন। ছোট একটা ভাই আছে আফসীনের। দিন তিনেক আগে তাঁর মা তাঁকে দেখে গেছেন।

এ ঘটনায় অপমৃত্যুর মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। আফসীনদের বাড়ি নোয়াখালীর চাটখিল।

Developed by : M. Masud Alam